COMPARE AND GO FOR THE BEST PRICE...

যেভাবে নিশ্চিত হবেন আপনার ফোনটি বৈধ নাকি অবৈধ

দেশে আগামী জুলাই মাসের ১ তারিখ হতে অবৈধ মোবাইলফোন চিন্হিতকরণ কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) এর পক্ষ থেকে এমনটাই বলা হয়েছে। এ কার্যক্রম শুরু হলে পর্যায়ক্রমে সকল অনিবন্ধিত এবং অবৈধ মোবাইল ফোনগুলি বন্ধ করে দেয়া হবে। এমতাবস্থায় খুব সংগত কারণেই মোবাইল ব্যবহারকারীদের মনে প্রশ্ন উঠেছে, তার হাতে থাকা ফোনটি বৈধ তো?!! সম্মানীত গ্রাহকগণ খুব সহজেই এ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবেন বলে জানিয়েছে বিটিআরসি। ফোন থেকে মেসেজের মাধ্যমে জানা যাবে ফোনটি বৈধ কি না।

বিটিআরসি কতৃপক্ষ জানায়, নতুন মোবাইল কেনার আগে প্যাকেটের গায়ে ১৫ সংখ্যার আইএমইআই নিবন্ধন নাম্বারটি চেক করে তারপর কিনতে হবে। নিশ্চিত হতে মেসেজ অপশনে গিয়ে বড় অক্ষরে কেওয়াইডি (KOID) স্পেস ১৫ সংখ্যার আইএমইআই নাম্বারটি লিখে ১৬০০২ এ সেন্ড করতে হবে। কিছুক্ষণের মধ্যেই ফোনটির বৈধ নবন্ধন আছে কিনা তা ফিরতি মেসেজে জানিয়ে দেয়া হবে। যদি বিটিআরসির ডাটাবেজে ফোনটির নিবন্ধন থাকে তাহলে ফোনটি ব্যবহারে আর বাধা থাকছেনা।

বাংলাদেশেই উৎপাদিত এবং নিয়ম মেনে আমদানি করা মোবাইলফোনগুলোর ইউনিক আইডি বা আইএমইআই নম্বর বিটিআরসিতে স্থাপিত জাতীয় পর্যায়ের কেন্দ্রীয় এনইআইআর সার্ভারে সংরক্ষণ করা থাকবে। যেই সাভারটি বিটিআরসির এনএআইডি সিস্টেম এবং
মোবাইল অপারেটরদের ইআইআর সিস্টেমের সাথে সমন্নিত একটি ব্যবস্থা হিসেবে কাজ করবে।

বলা হয়- এপর্যন্ত বিটিআরসির এনএআইডি সিস্টেমে (এনওসি অটোমেশন অ্যান্ড আইএমইআই ডাটাবেজ) প্রায় ১৪ কোটি আইএমইআই শনাক্তকরণ নম্বর যুক্ত করা সম্পন্ন হয়েছে। এবং প্রত্যেক মোবাইল অপারেট স্বয়ংক্রিয় ভাবে তাদের নিজস্ব ইআইআর সার্ভারের মাধ্যমে এনইআইআর সার্ভারে যুক্ত খাকবে। ফলে খুব সহজেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে গ্রাহকগণের নিবন্ধন সম্পন্ন করা সম্ভব হবে। ফলে সমন্নিত এনইআইআর সার্ভারে সব মোবাইলফোনের বৈধ নিবন্ধন রয়েছে কিনা যাচাই করে ফোনগুলোর প্রবেশাধিকার এবং দেশে বৈধতার বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া যাবে।

যেভাবে নিশ্চিত হবেন আপনার ফোনটি  বৈধ নাকি অবৈধ

এতে উল্লেখ করা হয় যে, যেসব গ্রাহকগণ বিদেশ থেকে কেনা বা উপহারে পাওয়া ফোন ব্যবহার করছেন, তাদের নিবন্ধনের আওতায় আসার সুযোগ রাখা হয়েছে। এক্ষেত্রে বিদেশ থেকে ক্রয়ের কাগজপত্র দেখিয়ে গ্রাহকগণ নিজেরাই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এবং হ্যান্ডসেট অপারেটরের কাস্টমার পয়েন্ট হতে নিবন্ধনের আওতায় আসতে পারবেন।

একই সাথে বিদেশ হতে নিজস্ব প্রয়োজনে বা উপহার হিসেবে মোবাইল নিয়ে আসার সর্বচ্চ সংখ্যা নির্ধারণ করে দেয়া হবে। সেই সংখ্যার বেশি মোবাইল দেশে নিয়ে আসলে সরকারকে নির্দিষ্ট পরিমাণে কর দিতে হবে।

বিটিআরসি আরও জানায়, মোবাইলফোন চোরাচালান এবং অবৈধ আমদানি বন্ধ করে গ্রাহক পর্যায়ে সংঘটিত বিভিন্ন অপরাধমূলক কার্যক্রম- যেমন ছিনতাই, চুরি, সাইবার ক্রাইম ইত্যাদি রোধ ও দমন করা করা হবে। পাশাপাশি সরকার এ খাত থেকে প্রতি বছর প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার অতিরিক্ত রাজস্ব আদায় করতে সক্ষম হবে। যা বাজেট বাস্তবায়নে সহায়ক ভুমিকা পালন করবে।

সূত্রঃ পূর্ব-পশ্চিম

Leave a Comment

error: Content is protected !!